পোলার ভেক্টর ও রেট্যাংগুলার ভেক্টর

আজকে আমাদের আলোচনার বিষয় পোলার ভেক্টর ও রেট্যাংগুলার ভেক্টর

পোলার ভেক্টর ও রেট্যাংগুলার ভেক্টর

পোলার ভেক্টর (Vector in polar form) :

স্থানাঙ্কতলে (Co-ordinate plane) অবস্থিত ভেক্টর, যা তার পরিমাণ (Magnitude) এবং ‘রেফারেন্স অ্যাক্সিস-এর সাথে সৃষ্ট কোণ (angle) দ্বারা নিরূপণ করা হয়, তাকে পোলার ভেক্টর বলে। পোলার ভেক্টরের পরিমাণ (Magnitude) কে ‘মডুলাস’ (Modulus) এবং নির্দেশক কোণকে ‘আরগুমেন্ট’ (Argument) বলে।

যথা- 120230° একটি পোলার ভেক্টর। এখানে 120 মডুলাস এবং 30° আরগুমেন্ট। পোলার ভেক্টরের সাহায্যে গুণ এবং ভাগ করা সম্ভব হয়। কিন্তু যোগ এবং বিয়োগ করা সম্ভব হয় না বিধায় ‘রেকট্যাংগুলার ভেক্টরের’ (Rectangular vector) সাহায্য নিতে হয়।

 

পোলার ভেক্টর ও রেট্যাংগুলার ভেক্টর

 

একটি পোলার ভেক্টরের যদি কোণের স্থানচ্যুতি ঘটে, তবে তার মডুলাস ঠিক থাকে, শুধু তার আরগুমেন্টের সাথে স্থানচ্যুত কোণের যোগ হয়। ৭.৫ নং চিত্রে এটি দেখানো হয়েছে। EZO ভেক্টরটি আরো ৪° ঘুরে প্রথম পাদ (1st Quadrant) হতে দ্বিতীয় পাদে অবস্থান নিলো এবং তা E [ 6 + 6 -এর সমান ।

রেট্যাংগুলার ভেক্টর (Vector in rectangular form) :

 

গুগল নিউজে আমাদের ফলো করুন
গুগল নিউজে আমাদের ফলো করুন

 

দ্বি-মাত্রিক তলে অবস্থিত একটি ভেক্টর, যাকে তার অনুভূমিক (Horizontal) এবং উল্লম্ব (Vertical) উপাদানের সাহায্যে প্রকাশ করা হয়, তাকে অবস্থিত রেট্যাংগুলার ভেক্টর বলে । এ ভেক্টরকে দ্বিপদ বা জটিলরাশি হিসেবে প্রকাশ করা হয়, যার প্রথম পদ অনুভূমিক উপাদান এবং দ্বিতীয় পদ উল্লম্ব উপাদান দ্বারা গঠিত।

 

পোলার ভেক্টর ও রেট্যাংগুলার ভেক্টর

 

ভেক্টরটির অবস্থান কোন্ কোয়াড্রেন্টে অবস্থিত তা প্রতিটি উপাদানের পূর্বের চিহ্ন (Sign) দ্বারা নির্ণয় করা হয়। যেমন, + x এবং + y উপাদান দ্বারা গঠিত একটি রেকট্যাংগুলার ভেক্টরের অবস্থান প্রথম কোয়াড্রেন্টে; – x এবং + y দ্বিতীয় পাদে; এবং − x এবং y তৃতীয় কোয়াড্রেন্টে; + x এবং – y চতুর্থ কোয়াড্রেন্টে।

‘j’ প্রতীক ব্যবহার করে উল্লম্ব-উপাদানকে অনুভূমিক উপাদান হতে পৃথক করা হয় এবং j-কে বলা হয় জটিলচালক (Complex-operator) E ভেক্টরকে রেকট্যাংগুলার ভেক্টর হিসেবে প্রকাশ করলে এ দাঁড়াবে- E = x + jy

আরও দেখুন : 

Leave a Comment